নিজের ব্রান্ডিং-এ লিঙ্কডিন

নিজের ব্রান্ডিং-এ লিঙ্কডিন

আজ খুব ভালো একটি আর্টিকেল নিয়ে হাজির হলাম আপনাদের মাঝে।আপনারা অনেকেই জানেন যে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জন্য আমাদের বিভিন্ন ধরণের সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে হয়। কিন্তু একটি সোশ্যাল মিডিয়া যা আপনার নিজের ব্রান্ডিং-এ গুরুত্বপূর্ন আবদান রাখে তা  হলো লিঙ্কডিন ।লিঙ্কডিন এমন একটি সোশ্যাল মিডিয়া যেখানে  প্রতিনিয়ত প্রোফেশনাল মেম্বার বৃদ্ধি পাচ্ছে। যদি একটি ব্যবসায়ের প্রচারের জন্য শুধু মাত্র কোন একটি সোশ্যাল মিডিয়া  ব্যবহার করতে বলা হয় তাহলে লিঙ্কডিন ব্যবহার করা উচিত। কারণ এখানে টার্গেটেড কাস্টমার বা গ্রাহক পাওয়া যায় এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন হল এই সোশ্যাল মিডিয়াতে ফেইক একাউন্টের সংখ্যা খুবই কম। তাই লিঙ্কডিনকে বলা ব্যবসায়ের এবং ক্যারিয়ারের জন্য  পাওয়ারফুল সোশ্যাল মিডিয়া। কিন্তু এই সোশ্যাল মিডিয়াতে মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সতর্কতার সাথে প্রফেশনাল ভাবে করতে হবে। তা না হলে মার্কেটিং এ সফলতা অর্জন করা যাবে না। ব্রান্ডিং এ লিঙ্কডিন এর ক্ষেত্রে যা যা জরুরী তা আপনাদের জেনে দেওয়া হল…

১.  প্রোফাইল পরিপূর্ন করুনঃ

আপনারা এটাও জানেন যে, যেহেতু লিঙ্কডিন একটি প্রফেশনাল সোশ্যাল মিডিয়া এবং এর মাধ্যমে আপনার নতুন কোন চাকুরী এর সুযোগও সৃষ্টি হতে পারে তাই লিঙ্কডিন প্রোফাইলের উপর বিশেষভাবে গুরুত্ব দিতে হবে। প্রথমেই আপনার ফটো এর দিকে লক্ষ্য করুন, একটি ভালো ফটো দিন যেখানে আপনার হাস্যউজ্জ্বল মুখ দেখা যাচ্ছে। পাসপোর্ট সাইজ এর ফটো দিয়েন না আবার, যেখানে আপনি বোকার মত তাকিয়ে আছেন এবং ভোটার আইডি কার্ড এর মতো তোলা ফটোও দিয়েন না। আপনি যদি আপনার ব্যবসায় এর ব্রান্ডিং এর কথা ভেবে থাকেন তাহলে প্রোফাইল সেভাবেই সাজান যেন আপনার ব্যবসায় ফুটে উঠে। আপনি যদি নিজের ব্রান্ডিং এর কথা ভাবেন তাহলে প্রোফাইল এভাবে সাজান যেন আপনার যত গুলো ভালো গুন আছে কর্মক্ষেত্রের জন্য, আপনার অভিজ্ঞতা ইত্যাদি পরিপূর্ণ ভাবে ফুটিয়ে তুলেন। প্রোফাইলে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা অনেক গুরুত্বপূর্ন বিষয়, কমপক্ষে আপনার শেষ ডিগ্রী সম্পর্কে বিস্তারিত লিখুন এবং আপনি যদি আপনার অন্যান্য ডিগ্রী সম্পর্কে দিতে চান, দিতে পারেন। কেউ যদি দিতে না চান তাহলে অবশ্যই আপনার কর্মক্ষেত্রের অভিজ্ঞতার দিকে বেশি জোর দিন, কারণ শিক্ষাগত যোগ্যতা বা কর্মক্ষেত্রের অভিজ্ঞতা এই দুটির কমপক্ষে একটি দিক দিয়ে আপনার প্রোফাইল শক্তিশালী হতে হবে।প্রোফাইলেকে প্রোফেশনাল করতে আপনার সকল অভিজ্ঞতা উল্লেখ করুন। আপনি কোথায় কোথায় চাকুরী করেছে? কোন কোন কাজের দায়িত্বে ছিলেন? ইত্যাদি।

২. অন্যদের দক্ষতায় অনুমোদন দিনঃ  

আপনার প্রোফাইল এর মত সবাই সবার প্রোফাইল এ নিজেদের দক্ষতার কথা উল্লেখ করেন। আপনার পরিচিতদের সম্পর্কে আপনি ভালো করে জানলে তারা কোন কোন বিষয় এ দক্ষ সে সব বিষয় এ অনুমোদন দিন। অনুমোদন তার প্রোফাইল কে আগের চাইতে আরো প্রোফেশনাল করে তুলবে এবং সেই ব্যক্তিও আপনার প্রোফাইল এ আপনার দক্ষতার উপর নির্ভর করে অনুমোদন দিতে পারে, যা আপনার সবচেয়ে বেশি।

৩. গ্রুপে জয়েন করুনঃ 

আপনাদের জানতে হবে যে,লিঙ্কডিন এ প্রফেশনাল ব্যক্তিদের সাথে কানেক্ট হওয়ার সহজ এবং গুরুত্বপূর্ন মাধ্যম হলো লিঙ্কডিন গ্রুপ। কিছু টার্গেটেড লিঙ্কডিন গ্রুপ এর সাথে যুক্ত হোন। সেই গ্রুপ এ আপনার দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা প্রকাশ করার জন্য সে সব বিষয়ের উপর পোষ্ট করুন। আবার অন্যের পোষ্টে কমেন্ট করে অপরের সমস্যা সমাধান এর মাধ্যমে আপনার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা তুলে ধরতে পারেন। অনেক ক্ষেত্রে এর মাধ্যমেও আপনি পেয়ে যেতে পারেন নতুন কোন কাজ ।

৪.  প্রোফাইল অপ্টিমাইজ করুনঃ

অন্য সকল সোশ্যাল মিডিয়ার মত লিঙ্কডিনেও বিভিন্ন কারণে সার্চ করা হয়। লিঙ্কডিনে সার্চ করার পিছনে প্রধান কারণ থাকে কর্মী খোজা, ফ্রীল্যান্সার খোঁজা, কোন বিষয়ের উপর অভিজ্ঞ খুজে বের করা বা একই জাতীয় কর্মকাণ্ডের সাথে যুক্ত ব্যক্তিদের সাথে যুক্ত হওয়া ইত্যাদি। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, একজন ব্যক্তির তার কোম্পানীর জন্য ডিজিটাল মার্কেটার প্রয়োজন। এই জন্য যদি কোন সোশ্যাল মিডিয়াতে খুজতে হয় তাহলে লিঙ্কডিন সবার প্রথম পছন্দ। সেজন্য আপনার প্রোফাইলকে অপ্টিমাইজ করতে হবে যাতে মানুষ আপনাকে সহজেই খুজে পায়। প্রোফাইলের হেডলাইনে আপনার কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন। এছাড়া সামারীতেও ব্যবহার করুন। এছাড়া আপনার বর্তমান অভিজ্ঞতা, স্কিল এবং ইন্টারেস্টে কোন কীওয়ার্ডে সার্চ করলে নিজেকেখুঁজে পেতে চান তা উল্লেখ করুন।

৫. সম্পর্ক তৈরিতে বেশি গুরুত্ব দিনঃ

অনেক ডিজিটাল মার্কেটার লিঙ্কডিনে বেশি বেশি কানেকশন অ্যাড করে। কিন্তু কানেকশন অ্যাড করার চেয়ে আপনার বর্তমান কানেকশনের সাথে সুসম্পর্ক তৈরি করাটা বেশি জরুরী। সুসম্পর্কের কারণে আপনার ইন্ডাস্ট্রিতে কোন প্রশ্ন থাকলে প্রথমে আপনাকে জিজ্ঞাসা করবে বা সার্ভিসের প্রয়োজন হলে আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।

৬. তথ্যবহুল পোষ্টঃ

আপনি যে পোস্ট করবেন, তা যেন তথ্যবহুল হয়। লিঙ্কডিনে প্রতিটি পোষ্ট গুরুত্বপূর্ন। পোষ্টের ক্ষেত্রে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে। কোন ধরণের পোষ্ট করা উচিত তা জানতে হবে। সজাগথেকে তথ্যবহুল, প্রোফেশনাল কন্টেন্ট পোষ্ট করুন।

৭. Slide Share

লিঙ্কডিন এর মাধ্যমে Slide Share লগ-ইন করুন এবং আপনি যে সব বিষয় এ অভিজ্ঞ তার উপর স্লাইড বানিয়ে শেয়ার করুন এবং আপনার লিঙ্কডিন প্রোফাইল এ শেয়ার করুন, আপনার সাথে যুক্ত ব্যাক্তিদের উপকার হবে এবং এর মাধ্যমে আপনার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে আপনার সাথে যুক্ত ব্যাক্তিরা জানতে পারবেন । মনে রাখবেন, এর মাধ্যমেই তৈরি হতে পারে আপনার জন্য কোন ভালো সুযোগ। উপরিউক্ত, বিষয় গুলো ভালো ভাবে অনুধাবন করলে আপনি উপকৃত হবেন।